এনবি নিউজ : বনানীর রেইনট্রি হোটেলে ২ শিক্ষার্থী ধর্ষণের ঘটনায় করা মামলার রায় ও রায়ের পর্যবেক্ষণ দেওয়া বিচারক কামরুন্নাহারের বিচারিক (ফৌজদারি) ক্ষমতা কেড়ে নিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

আজ সোমবার এ রায় দিয়েছেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ। আদালত সূত্র এ খবর নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে আজ আপিল বিভাগে হাজির হয়ে ক্ষমা চান বিচারক কামরুন্নাহার। ওই জামিন দেওয়ার বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে সোমবার সকালে তাকে আপিল বিভাগে হাজির হতে নির্দেশ দেয়া হয়েছিল। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে আপিল বিভাগে হাজির হন তিনি।

এরপর প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে ৫ বিচারপতির আপিল বেঞ্চে তার বিষয়ে রুদ্ধদ্বার শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। এসময় আপিল বিভাগ থেকে গণমাধ্যমকর্মীদের বের করে দেওয়া হয়।

রায় ঘোষণার পরে সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন থেকে এ বিষয়ে একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ‌‘ধর্ষণ মামলায় স্থগিতাদেশ থাকার পরও এক আসামিকে জামিন দেওয়ার ঘটনায় আইন মন্ত্রণালয়ে সংযুক্ত থাকা এবং ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭ এর সাবেক বিচারক বেগম মোছা. কামরুন্নাহার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে উপস্থিত হন। সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে আজকের (কজলিস্টে) কার্যতালিকার ১ নম্বর ক্রমিকের মামলায় শুনানি অন্তে তাহার ফৌজদারি বিচারিক ক্ষমতা সিজ (‍Seize) করেছেন মর্মে আদেশ প্রদান করেন। সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ রায় পরে প্রকাশ করা হবে।’

প্রসঙ্গত, ধর্ষণ মামলায় উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশ থাকার পরও একজন আসামিকে জামিন দিয়েছিলেন বিচারক কামরুন্নাহার।

এ টি