এনবি নিউজ : কুষ্টিয়া করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে আজ শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এক দিনে এই হাসপাতালে সর্বাধিক মৃত্যুর ঘটনা এটি।

গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতদের মধ্যে ১২ জনের করোনা পজিটিভ এবং ১০ জনের করোনার উপসর্গ ছিল বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবদুল মোমেন। তিনি বলেন, হাসপাতালে বর্তমানে করোনা পজিটিভ নিয়ে ১৮৭ জন ও করোনার উপসর্গ নিয়ে ৯৩ জনসহ মোট ২৮০ জন ভর্তি রয়েছে।

কুষ্টিয়া করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. তাপস কুমার সরকার জানান, জেলার সর্বত্র করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, ভারতীয় ডেলটা ভ্যারিয়্যান্টজনিত কারণে এমনটা হচ্ছে। শহরের তুলনায় গ্রামাঞ্চলে এখন করোনার প্রকোপ বেশি। গ্রামের মানুষের মধ্যে সচেতনতা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার প্রবণতা খুব কম। করোনার উপসর্গ নিয়ে দেরিতে চিকিৎসা নিতে আসা এবং দীর্ঘদিন বিভিন্ন জটিল রোগে ভোগা ৫০ বয়সোর্ধ্বদের মৃত্যু বেশি হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে, পিসিআর ল্যাব ও জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় জেলায় ৭৯২ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২২০ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ২৭ দশমিক ৭৭ শতাংশ।

সরকারঘোষিত চলমান বিধিনিষেধে (লকডাউন) স্থানীয় প্রশাসনের তৎপরতার মধ্যেও যত দিন যাচ্ছে মানুষ বাইরে বের হচ্ছেই। কোনোভাবেই স্বাস্থ্যবিধি মানছে না তারা।

এদিকে, সরকারি বিধিনিষেধ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে গতকাল বৃহস্পতিবার দিনভর অভিযান চালিয়ে ৬৩ জনের কাছ থেকে ৪৩ হাজার ৮০০ টাকা জরিমানা আদায় করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। জেলায় সেনা সদস্যদের টহল দিতেও দেখা গেছে।