এনবি নিউজ : টানটান উত্তেজনা আর শ্বাসরূদ্ধকর সেমিফাইনাল ম্যাচ দেখল বিশ্ব। ১৮তম ওভার পর্যন্ত দুই দলেরই আশা বেঁচেছিল।

এ দুই তারকার দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে পাকিস্তানকে ৫ উইকেটে হারিয়ে ফাইনালে উঠল অস্ট্রেলিয়া।

১৯তম ওভারে ম্যাথিউ ওয়ের তিন ছক্কায় পাকিস্তানের সব স্বপ্ন ধূলিসাৎ হয়ে গেল।

আজ দুবাইয়ে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে রিজওয়ানের ৫২ বলে ৬৯ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলেন। এরপর ঝড় তুলেন ফখর জামান। ৩ বাউন্ডারি ও ৪ ছক্কায় ৩২ বালে ৫৫ রানের ইনিংস খেললেন।

এ দুই ব্যাটারের ব্যাটে ভর করে অস্ট্রেলিয়াকে ১৭৭ রানের টার্গেট ছুড়ে দেয় পাকিস্তান।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই পেসার শাহিন শাহ আফ্রিদির তোপের মুখে উইকেট হারায় অসিরা। প্রথম ওভারেই মাত্র ১ রানে অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চের উইকেট তুলে নেন আফ্রিদি। ফিঞ্চ রানের খাতা খুলতেই পারেননি।

এরপর শুরু হয় শাদাব খানের ঘূর্ণিবলের ভেলকি। শাদাবের বলে ৬ বলে ৫ রানেই সাজঘরে ফেরেন স্টিভেন স্মিথ।

শুরুতে চাপের মধ্যে পড়ে যাওয়া অস্ট্রেলিয়ার হাল ধরেন ওয়ার্নার। তিনে ব্যাটিংয়ে নামা মিচেল মার্শকে সঙ্গে নিয়ে ৩৬ বলে ৫১ রানের জুটি গড়েন ওয়ার্নার।

এ সময় ফের  অসি শিবিরে আঘাত হানলেন  শাদাব খান। ২২ বলে ২৮ রানে দুর্দান্ত ছন্দে থাকা মিচেল মার্শকে আউট করেন।

৭৭ রানে ৩ উইকেট হারিয়েও ডেভিড ওয়ার্নারের ব্যাটে ভর করে ফাইনালের স্বপ্ন দেখছিল অস্ট্রেলিয়া। হাফসেঞ্চুরির দুয়ারে পৌঁছে গিয়ে বিপদজনক হয়ে উঠেছিলেন ওয়ার্নার। সেই ওয়ার্নারকে হাফসেঞ্চুরি করতে দেননি শাদাব।

শাদাবের বলে উইকেটকিপার রিজওয়ানের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ওয়ার্নার।  ৮৯ রানে ৪র্থ উইকেটটি হারায় অস্ট্রেলিয়া। দলের হাল ধরতে আসেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। এবার ম্যাক্সকেও বেশিক্ষণ ক্রিজে থাকতে দেননি শাদাব।

১৩তম ওভারের দ্বিতীয় বলে শাদাবের বলে হারিস রউফের হাতে ক্যাচ তুলে দেন ম্যাক্স। ১০ বলে ৭ রান করেই শেষ হয়এ অলরাউন্ডারের ইনিংস।

ম্যাক্সওয়েলকে দিয়ে নিজের ৪র্থতম উইকেট শিকার করেন শাদাব। শাদাবের ঘূর্ণিতে ৯৬ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলে অস্ট্রেলিয়া।

এরপর অবশ্য অলরাউন্ডার মার্কুস স্টইনিসের ব্যাটে ভর করে লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। ম্যাথু ওয়েডকে নিয়ে জুটি বড় গড়েন স্টইনিস।

শেষ ৩ ওভারে জয়ের জন্য অস্ট্রেলিয়ার প্রয়োজন পড়ে ৩৭ রানের। হাতে ৫ উইকেট। খেলার এই পর্যায়ে টান টান উত্তেজনা। এ সময় দলের ত্রাতা হয়ে আসেন ম্যাথিউ ওয়েড।

হাসান আলির করা ১৮তম ওভারে ছক্কা হাকিয়ে ১৫ রান তোলেন ওয়েড। অর্থাৎ ১২ বলে প্রয়োজন ২১ রানের। ১৯তম ওভারটি করেন শাহিন আফ্রিদি।

শাহিন আফ্রিদির পেসকে কাজে লাগিয়ে স্কুপ শটে ছক্কা হাঁকান ওয়েড। পরের বলকেও ছক্কা হাঁকান ওয়েড। পরের বলকেও ছক্কা হাঁকান ওয়েড। সেই ওভার থেকে আসে ২২ রান। এক ওভার বাকি থাকতেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় অস্ট্রেলিয়া। মাত্র ১৭ বলে ৪১ রানের ম্যাচজয়ী ইনিংস খেলেন ওয়েড। যেখানে ২টি বাউন্ডারি ও ৪টি ছক্কার মার ছিল। স্টইনিস ৩১ বলে ৪১ রানে অপরাজিত থাকেন।

এ টি